পশ্চিমবঙ্গ ও আসামের চা শ্রমিকদের কল্যাণে ১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ - আজ খবর । দেখছি যা লিখছি তাই । ডিজিটাল মিডিয়ায় অন্যতম শক্তিশালী সংবাদ মাধ্যম

Sonar Tori


পশ্চিমবঙ্গ ও আসামের চা শ্রমিকদের কল্যাণে ১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ

Share This

পশ্চিমবঙ্গ ও আসামের চা শ্রমিকদের কল্যাণে ১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ


আজ খবর (বাংলা), নতুন দিল্লী, ভারত, ০১/০২/২০২১ : কোভিড-১৯ মহামারীর সময় দুর্বল শ্রেণীর মানুষদের রক্ষার্থে সরকার নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। ২০২১-২২ অর্থবর্ষের বাজেট আজ সংসদে পেশ করার সময় কেন্দ্রীয় অর্থ ও কর্পোরেট বিষয়ক মন্ত্রী শ্রীমতী নির্মলা সীতারমন জানিয়েছেন, দেশ জুড়ে তিন সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণার ৪৮ ঘন্টার মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ যোজনা ঘোষণা করেছিলেন। ২ লক্ষ ৭৬ হাজার কোটি টাকার এই যোজনায় ৮০ কোটি মানুষকে বিনামূল্যে খাদ্যশস্য, ৮ কোটি পরিবারকে বিনামূল্যে রান্নার গ্যাস সরবরাহের পাশাপাশি, ৪০ কোটি কৃষক, মহিলা, প্রবীণ নাগরিক এবং দরিদ্র মানুষদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরাসরি অর্থ পাঠানো হয়েছিল।

সমাজের দুর্বলতর শ্রেণীর মানুষদের সাহায্যার্থে অর্থমন্ত্রী স্ট্যান্ড আপ ইন্ডিয়া প্রকল্পে আরও মূলধনের যোগানের ব্যবস্থা করেছিলেন। এর ফলে, তপশিলি জাতি, উপজাতি ও মহিলারা উপকৃত হয়েছিলেন। কৃষি সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ঋণ পাওয়ার জন্য প্রকল্পের মোট বরাদ্দের ২৫ শতাংশের পরিবর্তে এখন থেকে ১৫ শতাংশ অর্থ থাকলেই এই ঋণ পাওয়া যাবে।

অর্থমন্ত্রী পশ্চিমবঙ্গ ও আসামে চা শ্রমিকদের জন্য ১ হাজার কোটি টাকার একটি তহবিলের প্রস্তাব করেছেন। এর ফলে, মহিলা ও তাঁদের শিশুরা উপকৃত হবেন। অর্থমন্ত্রী আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকায় ৭৫০টি একলব্য মডেল আবাসিক বিদ্যালয় গড়ে তোলার প্রস্তাব দিয়েছেন। এই বিদ্যালয়গুলি গড়ে তুলতে ২০-৩৮ কোটি টাকা ব্যয় হবে। তবে, পার্বত্য অঞ্চল ও দুর্গম এলাকায় এ ধরনের বিদ্যালয় স্থাপনে ৪৮ কোটি টাকার সংস্থান রাখা হয়েছে। তপশিলি জাতিভুক্ত ছাত্রছাত্রীদের মাধ্যমিক উত্তীর্ণ হওয়ার পর যে বৃত্তির ব্যবস্থা করা হয়েছে, তার জন্য ২০২৫-২৬ অর্থবর্ষ পর্যন্ত ৩৫ হাজার ২১৯ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। এর ফলে, ৪ কোটি তপশিলি জাতিভুক্ত ছাত্রছাত্রীরা উপকৃত হবে।

অতিক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পোদ্যোগের জন্য ১৫ হাজার ৭০০ কোটি টাকা এবারের বাজেট বরাদ্দ করা হয়েছে, যা পূর্ববর্তী বাজেটের দ্বিগুণ।

যুবক-যুবতীদের বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণের সুযোগ করে দিতে সংশ্লিষ্ট আইনটি সংশোধনের প্রস্তাব করা হয়েছে। বর্তমান ন্যাশনাল অ্যাপ্রেন্টিসশিপ ট্রেনিং স্কিমে ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করা স্নাতক ও ডিপ্লোমা হোল্ডারদের প্রশিক্ষণের জন্য ৩ হাজার কোটি টাকার সংস্থান রাখা হয়েছে। দক্ষ শ্রমিকদের মূল্যায়ন ও শংসাপত্র প্রদানের ক্ষেত্রে সংযুক্ত আরব আমীরশাহীর সঙ্গে অংশীদারিত্বের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও, ভারত ও জাপানের মধ্যে ট্রেনিং ইন্টার ট্রেনিং প্রোগ্রামের আওতায় জাপানের শিল্প ও কারিগরি দক্ষতা এবং জ্ঞান এদেশে নিয়ে আসার ক্ষেত্রে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে অন্যান্য দেশের সঙ্গেও এ ধরনের প্রয়াস নেওয়া হবে বলে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন।

Loading...

Amazon

https://www.amazon.in/Redmi-8A-Dual-Blue-Storage/dp/B07WPVLKPW/ref=sr_1_1?crid=23HR3ULVWSF0N&dchild=1&keywords=mobile+under+10000&qid=1597050765&sprefix=mobile%2Caps%2C895&sr=8-1

Pages