অন্তরীক্ষে ভুটানের সাথে শান্তিপূর্ণ সহযোগিতার সমঝোতা ভারতের - আজ খবর । দেখছি যা লিখছি তাই । ডিজিটাল মিডিয়ায় অন্যতম শক্তিশালী সংবাদ মাধ্যম

Sonar Tori


অন্তরীক্ষে ভুটানের সাথে শান্তিপূর্ণ সহযোগিতার সমঝোতা ভারতের

Share This



আজ খবর (বাংলা), নতুন দিল্লী, ভারত, ৩১/১২/২০২০ : প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীর পৌরহিত্যে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা আজকের বৈঠকে অন্তরীক্ষে শান্তিপূর্ণ উদ্দেশ্যে সহযোগিতার জন্য ভারত ও ভুটানের মধ্যে সমঝোতাপত্রটি অনুমোদন করেছে। ব্যাঙ্গালোর/থিম্পুতে উভয় পক্ষ ১৯এ নভেম্বর এটি স্বাক্ষর করেছিল। 

বিস্তারিত তথ্য :

এই সমঝোতাপত্র পৃথিবীর দূরসংবেদী ব্যবস্থা, কৃত্রিম উপগ্রহ মারফত যোগাযোগ ও উপগ্রহ ভিত্তিক দিক নির্দেশনা, মহাকাশবিজ্ঞান ও বিশ্ব ব্রহ্মান্ড নিয়ে গবেষণা, মহাকাশ যানের ব্যবহার ও মহাকাশ ব্যবস্থা এবং মহাকাশ প্রযুক্তির বিভিন্ন প্রয়োগের মতো সম্ভাবনাময় ক্ষেত্রে ভারত ও ভুটানের মধ্যে সহযোগিতা গড়ে তুলতে সাহায্য করবে।  

 সমঝোতাপত্রটি ভারতের মহাকাশ দপ্তর/ ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা এবং ভুটানের তথ্য ও যোগাযোগ মন্ত্রকের সদস্যদের নিয়ে একটি যৌথ কর্মীগোষ্ঠী গঠন করবে। এই কর্মীগোষ্ঠী নির্দিষ্ট সময়ে বিভিন্ন পরিকল্পনার বাস্তবায়ন করবে। 

বিভিন্ন কৌশল রূপায়ণ :

স্বাক্ষরিত সমঝোতাপত্রটি নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে সহযোগিতার জন্য বিভিন্ন ব্যবস্থা নেবে, যৌথ কর্মীগোষ্ঠী গঠন করবে এবং নানা প্রকল্প বাস্তবায়নের সময় নির্ধারণ করে সেটি রূপায়ণ করবে।  

গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব :

এই সমঝোতাপত্র স্বাক্ষরিত হওয়ায় পৃথিবীর দূরসংবেদী ব্যবস্থাপনা, কৃত্রিম উপগ্রহ মারফত যোগাযোগ ব্যবস্থা, কৃত্রিম উপগ্রহের সাহায্যে দিক নির্দেশনা, মহাকাশ বিজ্ঞান ও বর্হিবিশ্বে বিভিন্ন গবেষণার ক্ষেত্রে দুটি দেশের মধ্যে সহযোগিতা গড়ে উঠবে। 

সুবিধাভোগী :

ভুটান সরকারের সঙ্গে এই চুক্তির মাধ্যমে সহযোগিতার যে সুযোগ তৈরি হবে তার ফলে মানব জাতির উন্নয়নে মহাকাশ প্রযুক্তির প্রয়োগে যৌথ উদ্যোগ গড়ে উঠবে। এর মাধ্যমে এই অঞ্চলের সকল শ্রেণী উপকৃত হবে।  

পশ্চাদপট :

আনুষ্ঠানিকভাবে মহাকাশ ক্ষেত্রে সহযোগিতার জন্য ভারত ও ভুটান আলোচনা করে আসছে। বিদেশ মন্ত্রকের উদ্যোগে ভুটানের সঙ্গে আন্তঃসরকারি স্তরে মহাকাশ ক্ষেত্রে সহযোগিতার বিষয়ে ২০১৭র নভেম্বরে একটি সমঝোতাপত্রের খসড়া তৈরি হয়। এরপর এই খসড়াটি ২০২০র ফেব্রুয়ারিতে দ্বিপাক্ষিক আলোচনায় স্থান পায় এবং তখন বিভিন্ন প্রস্তাব নিয়ে মতবিনিময় হয়। 

কূটনৈতিক স্তরে আলাপ-আলোচনার পর উভয় পক্ষ একটি চূড়ান্ত খসড়া তৈরি করে। এরপর সেটি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের থেকে অনুমতি পাওয়ায় ১৯এ নভেম্বর দুই পক্ষ এটি স্বাক্ষর এবং হস্তান্তর করে।  

  

Loading...

Amazon

https://www.amazon.in/Redmi-8A-Dual-Blue-Storage/dp/B07WPVLKPW/ref=sr_1_1?crid=23HR3ULVWSF0N&dchild=1&keywords=mobile+under+10000&qid=1597050765&sprefix=mobile%2Caps%2C895&sr=8-1

Pages