বিনা পারিশ্রমিকে হাসিমুখে রোজ সেনাবাহিনীকে সাহায্য করে চলেছে লাদাখের গ্রামবাসীরা - আজ খবর । দেখছি যা লিখছি তাই । ডিজিটাল মিডিয়ায় অন্যতম শক্তিশালী সংবাদ মাধ্যম

Sonar Tori


বিনা পারিশ্রমিকে হাসিমুখে রোজ সেনাবাহিনীকে সাহায্য করে চলেছে লাদাখের গ্রামবাসীরা

Share This

বিনা পারিশ্রমিকে হাসিমুখে রোজ সেনাবাহিনীকে সাহায্য করে চলেছে লাদাখের গ্রামবাসীরা


আজ খবর (বাংলা), লাদাখ, ভারত, ২২/০৯/২০২০ :
ভারত-চীন সীমান্তে লাদাখের সাধারণ গ্রামবাসীরা প্রতিদিন  স্বতঃস্ফূর্তভাবে সাহায্য করে চলেছে ভারতীয় সেনাবাহিনীকে। গ্রামবাসীদের এই প্রাণবন্ত স্বতঃস্ফূর্ততা দেখে উচ্ছসিত সেনা জওয়ানরাও। 

লাদাখের চুশূল গ্রামটি সীমান্তের একেবারেই কাছে অবস্থিত। সেনাবাহিনী কিছুদিন আগেই প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখার কাছে দুর্গম পাহাড় চুড়া 'ব্ল্যাক টপ' দখল করেছে। সেই পাহাড় চূড়ায় খাদ্য দ্রব্য, পানীয় জল, ওষুধপত্র ছাড়াও অন্যান্য জরুরি সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছে চুশূল গ্রামের সাধারণ মানুষ। গ্রামবাসীদের মধ্যে বয়স্করাও যেমন আছেন, তেমন তরুণরাও আছে, এমনকি কম বয়সী ছেলেমেয়েরাও আছে।

চুশূল গ্রামের প্রায় ১০০ জন গ্রামবাসী প্রতিদিন সেনাবাহিনীর ব্যাগ, জল ও তেল ভর্তি জারিকেন, বাঁশ, স্যাক, তাঁবু, খাদ্যদ্রব্য, ওষুধপত্র ছাড়াও অন্যান্য বহু জিনিস দুর্গম পাহাড় বেয়ে চূড়ায় পৌঁছে দিচ্ছে, যাতে পাহাড়ের শীর্ষে সেনাবাহিনীর পক্ষে তাঁবু ফেলে ভয়ঙ্কর শীতের .মধ্যেও দিনের পর দিন কাজ করতে কোনোরকম অসুবিধা না হয়।

এখনই লাদাখের এই অঞ্চলে বেশ শীত  পড়ে গিয়েছে। আর কিছুদিন পরেই এই অঞ্চল বরফের মোটা চাদরের নিচে চলে যাবে। ঘন ঘন তুষারপাত হবে, তার মধ্যেই বইতে থাকবে ঝোড়ো হাওয়া। এই অঞ্চলে তাপমাত্রা নেমে যাবে মাইনাস ৪০ ডিগ্রির আশেপাশে। গ্রামবাসীদের চিন্তা, সেই সময় যেন সেনাবাহিনীর জওয়ানদের কোনোরকম অসুবিধায় পড়তে না হয়।  কেননা যদি সেনা জওয়ানরা  কোনোভাবে বিফল হন , তাহলে তাদের গ্রাম চিরতরে চীনের অধীনে চলে যাবে। 


তাই এই লড়াই এখন তাদেরও। তারা প্রাণপনে সাহায্য করে চলেছে সেনাবাহিনীকে। তারা উৎসাহ দিচ্ছে সেনা জওয়ানদের। তারা বলছে এই যুদ্ধে তারাও সামিল রয়েছে। চুশূল গ্রামের লোকজন রোজ টিভি দেখে না। প্রতি মুহূর্তে ইন্টারনেট ব্যবহার করে না। তাই দুই দেশের অস্ত্র ভান্ডার সম্পর্কে তাদের কোনো জ্ঞান নেই। তারা রয়েছে যুদ্ধক্ষেত্রেই। তারা সব কিছুই প্রত্যক্ষ করবে সামনে থেকে। একেবারে লাইভ দেখার মত করে। দুই চারটে মিসাইল, রকেট উড়ে এসে নিমেষে ধ্বংস করে দেবে তাদের ঘরবাড়ি।  গ্রামবাসীদের কেউ কেউ  হয়ত প্রাণও হারাবে। সব কিছুর জন্যে প্রস্তুত সীমান্তের এই গ্রামগুলি। কারন আর পাঁচটা রাজ্যের অধিবাসীদের মত তারাও ভালবাসে তাদের ভারতমাতাকে। তাই বিনা পারিশ্রমিকে, কোনোরকম প্রতিদানের আসা না করে হাসিমুখে ভারত মায়ের বীর  সন্তান সেনা জওয়ানদের সাহায্য করে চলেছে লাদাখের গ্রামবাসীরা। এঁরাও প্রণম্য !

Loading...

Amazon

https://www.amazon.in/Redmi-8A-Dual-Blue-Storage/dp/B07WPVLKPW/ref=sr_1_1?crid=23HR3ULVWSF0N&dchild=1&keywords=mobile+under+10000&qid=1597050765&sprefix=mobile%2Caps%2C895&sr=8-1

Pages