বন্ধুত্ব আরও জোরদার করতে ভুটান রাজাকে ফোন মোদীর - আজ খবর । দেখছি যা লিখছি তাই । ডিজিটাল মিডিয়ায় অন্যতম শক্তিশালী সংবাদ মাধ্যম

Sonar Tori


বন্ধুত্ব আরও জোরদার করতে ভুটান রাজাকে ফোন মোদীর

Share This

বন্ধুত্ব আরও জোরদার করতে ভুটান রাজাকে ফোন মোদীর
ভুটানের রাজার সাথে নরেন্দ্র মোদী (ফাইল চিত্র)


আজ খবর (বাংলা), নতুন দিল্লী ও থিম্পু, ভারত ও ভুটান, ১৮/০৯/২০২০ :  আজ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী টেলিফোনে কথা বললেন ভুটানের রাজা জিগমে খেসার নামগিয়েল ওয়াংচুকের সাথে।

ভুটান ভারতের বহু পুরোন বন্ধু দেশ। দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক এবং পারস্পরিক সম্পর্ক দীর্ঘদিন ধরেই মজবুত রয়েছে। ইদানিং ভুটানে করোনা মহামারীর প্রকোপ কিছুটা বেড়ে গিয়েছে। সেই কারণেই আজ নরেন্দ্র মোদী  ফোন করে ভুটানের রাজার সাথে কথা বলে ভুটানকে সব রকম সাহায্যের আশ্বাস দিলেন। সেই সঙ্গে ভুটানের প্রাক্তন রাজা এবং রাজপরিবারের সদস্যদের শুভেচ্ছা জানালেন। 

গতকালই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ৭০ তম  জন্মদিন ছিল, দেশের বড় বড় নেতারা তো বটেই, বিরোধী পক্ষও  মোদীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। বিদেশ থেকেও এসেছে শুভেচ্ছা; রাশিয়া, আমেরিকা, জাপান সহ বিশ্বের বহু দেশ থেকে এসেছে শুভেচ্ছা এবং অভিনন্দন। আজ টেলিফোনে পেয়ে গিয়ে ভুটানের রাজাও মোদীকে  জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানালেন। মোদীও জানালেন ভুটানের যে কোনো বিপদে ভারত পাশেই রয়েছে এবং আগামীদিনেও থাকবে।

কিছুদিন ধরেই চীন ভারতের সীমান্তের বিভিন্ন জায়গায় ঢুকে পড়ার চেষ্টা করে যাচ্ছে। তাই পূর্ব লাদাখ ছাড়া অরুণাচল প্রদেশেও প্রচুর পরিমাণে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে ভারতের তরফ থেকে। এদিকে চীন চেষ্টা করে চলেছে ভারতের প্রতিবেশী দেশগুলোকে বন্ধু হিসেবে পাশে পেতে। পাকিস্তান চীনের অন্তরঙ্গ বন্ধু দেশ হয়ে উঠেছে। চীন নেপালকেও দলে টানার চেষ্টা করেছিল, কিন্তু তাদের দেশের অভ্যন্তরেই ভারতের প্রতি বিপুল  সমর্থন থাকায়, নেপাল আর চীনের দিকে খুব বেশি ঝুঁকতে পারে নি। 

চীন চেষ্টা করেও বাংলাদেশকে নিজের দলে সামিল করতে পারে নি। এ দিক থেকে ভুটানের ভৌগলিক অবস্থান অনেকটাই গুরুত্বপূর্ণ। তাই চীনের আগেই ভুটানের রাজাকে ফোন করে কূটনৈতিক চালে এক ধাপ এগিয়ে থাকলেন নরেন্দ্র মোদী, যাতে ভুটানকে পাশে পাওয়া যায় প্রয়োজনে। অবশ্য ভুটান ভারতের দীর্ঘদিনের বন্ধু। চীনকে কোনোকালেই খুব বেশি গুরুত্ব দেয়  না ভুটান।  

শুধুই তাই নয়, চীন যদি ফের ডোকালাম  সীমান্তে কোনোরকম সমস্যা তৈরি করে তখন ভুটানকে পাশে পাওয়া খুব দরকার ভারতের। কেননা ডোকালামের  ভৌগলিক অবস্থান এমন একটা জায়গায়, যেখানে চীন, ভারত, ভুটান এবং নেপালের সীমান্ত রয়েছে একেবারে কাছাকাছি। সেক্ষেত্রে ডোকালামে  সমস্যা তৈরি হলে ভারতের পাশে যাতে ভুটান এবং নেপাল থাকে তা ভারত অবশ্যই চাইবে। সব মিলিয়ে পাকিস্তান ছাড়া বাকি সব প্রতিবেশীদের পাশে পেতে চাইছে ভারত। তাদের সমর্থনও চাইছে। আর কূটনৈতিক দিক থেকে এই লড়াইয়ে ভারত এই মুহূর্তে চীনকে অনেক অনেক পিছনে ফেলে এসেছে। বিশ্বের বেশিরভাগ দেশই এখন ভারতের বন্ধু। 

Loading...

Amazon

https://www.amazon.in/Redmi-8A-Dual-Blue-Storage/dp/B07WPVLKPW/ref=sr_1_1?crid=23HR3ULVWSF0N&dchild=1&keywords=mobile+under+10000&qid=1597050765&sprefix=mobile%2Caps%2C895&sr=8-1

Pages