কাঁধে রেখে নিক্ষেপ করা যায়, লাদাখে এমন মিসাইল লঞ্চার মোতায়েন করল ভারত - আজ খবর । দেখছি যা লিখছি তাই । ডিজিটাল মিডিয়ায় অন্যতম শক্তিশালী সংবাদ মাধ্যম

Sonar Tori


কাঁধে রেখে নিক্ষেপ করা যায়, লাদাখে এমন মিসাইল লঞ্চার মোতায়েন করল ভারত

Share This

কাঁধে রেখে নিক্ষেপ করা যায়, লাদাখে এমন মিসাইল লঞ্চার মোতায়েন করল ভারত

আজ খবর (বাংলা ), লাদাখ, ভারত,  ২৬/০৮/২০২০ : গত কয়েকদিন ধরেই দেখা যাচ্ছে চীনা টহলদারি বিমান এবং হেলিকপ্টার পূর্ব লাদাখ সীমান্তের খুব কাছাকাছি চলে আসছে। এই কারণে এবার ভারত লাদাখ সীমান্তে  জওয়ানদের কাঁধে রেখেই  নিক্ষেপ করা যাবে এমন মিসাইল লঞ্চার মোতায়েন করল।

গত কয়েকদিন ধরে ভারতীয় সেনা জওয়ানরা লক্ষ করে দেখেছেন, চীনা টহলদারি বিমানগুলি এবং কিছু হেলিকপ্টার প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বা LAC র খুব কাছাকাছি চলে আসছে। কিছু কিছু সময় তারা যেন সীমান্ত পার করে ভারতীয় আকাশেও ঢুকে আসতে  চাইছে। এভাবেই আকাশ পথে ভারতকে উস্কানি দিতে চাইছে চীনা সেনাবাহিনী। আগেকার দিন হলে হয়ত ভারত  নির্বিকার থেকে যেত, হয়ত বা কূটনৈতিক স্তরে  ভারত এই প্রসঙ্গ তুলত। আর সেখানেই থেমে  যেত সবকিছু। এইভাবেই এতদিন একটু একটু করে ভারতের জমি দখল করে এসেছে চীন। 

কিন্তু সেই ভারত এখন অনেক বদলে গিয়েছে। কেন্দ্রে মোদী সরকার এখন অনেক বেশি পরিণত। এখন ইঁটের বদলে পাটকেল  দিতে মোদী সরকারকে দুবার ভাবতে হয় না।  তাই ভারতের দিকে ছোট একটা ঢিল ছুঁড়তেও দশবার ভাবতে হচ্ছে চীনকে. আর চীনকে সেটা ভাবতে বাধ্য করেছে ভারত। পূর্ব লাদাখের  গ্যালওয়ান উপত্যকায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর কাছে যে এভাবে মার খেয়ে মাথা নিচু করে ফিরে আসতে হবে, তা বোধ হয় স্বপ্নেও ভাবেন নি চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। আর গ্যালওয়ান  উপত্যাকায় ভারতের হাতে মার খেয়েই এবার চীনকে ভারতের বিরুদ্ধে শত্রুতা করার নতুন নতুন পন্থা অবলম্বন করে দেখতে হচ্ছে, কিন্তু সফল হচ্ছে না কোনো কৌশলই। উপরন্তু ভারতের সাথে শত্রুতা করে প্রায় গোটা বিশ্বের সাথেই শত্রুতা করে ফেলেছে চীন। 

গত কয়েকদিন ধরে নজরদারির অছিলায় চীনা যুদ্ধবিমান ও হেলিকপ্টার যেভাবে ভারতীয় সীমান্তের ভিতরে ঢুকে পড়তে চাইছে, তাতে করে আর কোনো রকম ঝুঁকি না নিয়ে ভারত প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর লাদাখের দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চলে সতর্কতা আরও বাড়িয়েছে। বিশেষ করে গ্যালওয়ান এবং ১৪ নম্বর পোস্টের কাছে। বেশ কিছু জায়গায় নতুন করে রাডার এবং সেন্সর লাগিয়েছে ভারত। 

শুধু তাই নয় এক ধরনের ছোট মাপের মিসাইল লঞ্চার মোতায়েন করা হয়েছে, যে মিশাইলগুলি জওয়ানরা নিজেদের কাঁধে রেখেই নিক্ষেপ করতে পারবেন। এই ধরনের মিসাইল আর্মি এবং এয়ার ফোর্সের জওয়ানরা ব্যবহার করবেন। এরপর যদি নজরদারি করতে আসা  চীনা বিমান নিজেদের সীমা লংঘন করে, তাহলে পাহাড়ের লুকোনো জায়গা থেকে মিসাইল ছুঁড়ে নিখুঁতভাবে জবাব দিতে শুরু করবে ভারতীয় সেনাও। মাটি থেকে মিসাইল দেগে চীনা বিমানকে উড়িয়ে দিতে কসুর করবে না ভারত। 

Loading...

Amazon

https://www.amazon.in/Redmi-8A-Dual-Blue-Storage/dp/B07WPVLKPW/ref=sr_1_1?crid=23HR3ULVWSF0N&dchild=1&keywords=mobile+under+10000&qid=1597050765&sprefix=mobile%2Caps%2C895&sr=8-1

Pages