আগামীকাল নাশকতার সম্ভাবনা উড়িয়ে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না কয়েকটি কারণে - আজ খবর । দেখছি যা লিখছি তাই । ডিজিটাল মিডিয়ায় অন্যতম শক্তিশালী সংবাদ মাধ্যম

Sonar Tori


আগামীকাল নাশকতার সম্ভাবনা উড়িয়ে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না কয়েকটি কারণে

Share This
আগামীকাল নাশকতার সম্ভাবনা উড়িয়ে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না কয়েকটি কারণে

আজ খবর (বাংলা ), শ্রীনগর, জম্মু ও কাশ্মীর, ০৪/০৮/২০২০ :   ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা 'র' জানিয়েছিল আগামীকাল অর্থাৎ 5 তারিখে কাশ্মীর এবং অযোধ্যায় হামলা চালাতে পারে পাকিস্তানি জঙ্গীরা। এই ব্যাপারে চুড়ান্ত সতর্কতা নেওয়া হলেও সেই সম্ভাবনা প্রবল হওয়ার কথা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।
জম্মু ও কাশ্মীরে এবং উত্তরপ্রদেশের অযোধ্যায় জঙ্গী হানা হতে পারে বলে আগেই সতর্ক করেছিল দেশের গোয়েন্দা সংস্থা 'র'। রিপোর্টে বলা হয়েছিল পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই আফগান সীমান্তে নিয়ে গিয়ে জৈশ ই মহম্মদ এবং অন্যান্য কিছু সংগঠনের জঙ্গীদেরকে বিশেষ ট্রেনিং দিয়েছে তালিবান ও আল কায়দার জঙ্গীদের সাহায্যে। উদ্দেশ্য আগস্ট মাসের 5 তারিখ এবং 15 তারিখে ভারতে নাশকতা চালানো। এই উদ্দেশ্যে 5 বা 6টি দলে ভাগ করে জঙ্গীদের এই দেশে ঢুকিয়ে দেওয়া হবে। 
আগামিকাল অর্থাৎ 5 তারিখে দেশে দুটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার আছে। একটি হল অযোধ্যায় শ্রী রামলালার মন্দিরে শিলান্যাস। যেখানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ছাড়াও উপস্থিত থাকবেন অনেক ভিভিআইপি। আগামিকাল জঙ্গীদের টার্গেট হল বাবরি মসজিদ ভেঙ্গে রাম মন্দির পুনর্গঠনের বদলা নেওয়া।
দ্বিতীয় কারন হল, আগামিকাল জম্মু ও কাশ্মীর থেকে 370 ও 35এ ধারা অবলুপ্তির প্রথম বর্ষ পুরণ হচ্ছে। গত বছর 5 তারিখেই জম্মু ও কাশ্মীরকে বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা ক্ষুন্ন করে ভারত কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে পরিণত করেছিল। 370 ও 35এ ধারা দুটি অবলুপ্ত করেছিল। কাশ্মীরের বিচ্ছিনতাবাদী নেতাদের আটক করা হয়েছিল। তাই আগামিকাল অর্থাৎ 5 তারিখকেই টার্গেটের দিন হিসেবে বেছে নিয়েছে পাক মদতপুষ্ট জঙ্গীরা।
এই সম্ভাব্য জঙ্গী হানার জন্যে ভারত সম্পূর্ণভাবে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। জম্মু ও কাশ্মীরে সতর্কতা এবং তল্লাশি আরও বাড়ানো হয়েছে। পুলিশ ও আধা সেনা টহল দিচ্ছে কাশ্মীরের পথে ঘাটে। আজ এবং আগামিকাল দুদিনের জন্যে গোটা জম্মু ও কাশ্মীর জুড়ে কার্ফু ঘোষণা করা হয়েছে। সীমান্তের গ্রামগুলিতে নিয়োগ করা হয়েছে ইনটেলিজেন্স ব্যুরোর গোয়েন্দাদের। অযোধ্যা জুড়েও নিরাপত্তা ব্যবস্থা কঠোর করা হয়েছে। নজর রাখা হচ্ছে সিসিটিভি ও ড্রোন ক্যামেরার মাধ্যমে।  আগামিকাল ছাড়াও আগামী 15ই অগষ্ট রয়েছে দেশের স্বাধীনতা দিবস। জঙ্গী হুমকি রয়েছে ঐ দিনেও। কড়া সতর্কতা নেওয়া হয়েছে সেই দিনটার জন্যেও।
তবে এই মুহুর্তে নিরাপত্তার দিকটা সুনিশ্চিত করতে আগামী আগামীকাল অর্থাৎ 5 তারিখ্কেই পাখীর চোখ করেছেন গোয়েন্দারা। কড়া সতর্কতা নেওয়া হয়েছে জম্মু ও কাশ্মীর, অযোধ্যা ছাড়াও রাজধানী দিল্লী ও অন্যান্য শহরগুলিতে। জম্মু ও কাশ্মীরে নিরাপত্তা বাহিনী দিন রাত এক করে তল্লাশি অভিযান চালিয়ে গিয়েছে। গতকাল দক্ষিন কাশ্মীরে এক সেনা জওয়ান ছুটি নিয়ে নিজের বারি ফিরছিলেন। সেই সময় তাঁকে অপহরণ করে জঙ্গীরা। জওয়ানের গাড়িটিকে আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। ঐ জওয়ানের খোঁজে বিভিন্ন জায়গায় চলছে তল্লাশি। কিন্তু তাঁকে এখনো খুঁজে পাওয়া যায় নি। আজ শ্রীনগর বারামুলা জাতীয় সড়কের ওপর ট্যপার পট্টন এলাকায় একটি পেট্রল পাম্পের কাছে  একটি আইইডি বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়েছে। পরে সেনাবাহিনীর বম্ব ডিসপোজাল স্কোয়াড এসে সেই বোমাটি ফাটিয়ে দেয়। এদিকে সীমান্ত বরাবর বিনা প্ররোচনায় পাকিস্তান লাগাতার শেলিং করে চলেছে, জার উদ্দেশ্য একটাই, আর সেটা হল শেলিং চালিয়ে সীমান্ত দিয়ে জঙ্গীদের কোনোভাবে অনুপ্রবেশ করিয়ে দেওয়া। ভারতীয় সেনা জওয়ানরাও অত্যন্ত সতর্কতার সাথে পাকিস্তানের সীমান্তে শেলিং করে জবাব দিয়ে যাচ্ছে এবং ড্রোন ও  স্যাটেলাইটের মাধ্যমে কড়া নজর রেখেছে সীমান্তের ওপর।
Loading...

Amazon

https://www.amazon.in/Redmi-8A-Dual-Blue-Storage/dp/B07WPVLKPW/ref=sr_1_1?crid=23HR3ULVWSF0N&dchild=1&keywords=mobile+under+10000&qid=1597050765&sprefix=mobile%2Caps%2C895&sr=8-1

Pages