করোনা ভাইরাসে ভারতে প্রতি দশ লক্ষ জনের হিসেবে মৃত্যুর সংখ্যা সবথেকে কম - আজ খবর । দেখছি যা লিখছি তাই । ডিজিটাল মিডিয়ায় অন্যতম শক্তিশালী সংবাদ মাধ্যম

Sonar Tori


করোনা ভাইরাসে ভারতে প্রতি দশ লক্ষ জনের হিসেবে মৃত্যুর সংখ্যা সবথেকে কম

Share This
দেশের খবর

আজ খবর(বাংলা), নতুন দিল্লী, ভারত, ০৯/০৭/২০২০ :  বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা গত ৬ই জুলাই একটি  প্রতিবেদনে জানিয়েছে প্রতি ১০ লক্ষ জনের হিসেবে ভারতে ৫০৫.৩৭ জন সংক্রমিত হয়েছেন। সারা বিশ্বে প্রতি ১০ লক্ষ জনের মধ্যে সংক্রমিতের সংখ্যার হিসেব  ১৪৫৩.২৫জন। 
চিলির জনসংখ্যার হিসবে প্রতি ১০ লক্ষ জনের মধ্যে ১৫,৪৫৯.৮ জন সংক্রমিত। পেরু, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল ও স্পেনের হিসেবে এই সংখ্যাটি যথাক্রমে ৯০৭০.৮, ৮৫৬০.৫,৭৪১৯.১ এবং ৫৩৫৮.৭ জন। 
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরিস্থিতি সংক্রান্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী ভারতে  প্রতি দশ লক্ষ জনের হিসেবে মৃত্যুর সংখ্যা সবথেকে কম। ভারতে এই সংখ্যা ১৪.২৭। যেখানে সারা বিশ্বের হিসেবে এই সংখ্যা ৬৮.২৯।
বৃটেনে প্রতি দশ লক্ষ জনের মধ্যে ৬৫১.৪ জন কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে মারা গেছেন। স্পেন, ইটালি, ফ্রান্স ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এই সংখ্যাটি যথাক্রমে ৬০৭.১, ৫৭৬.৬, ৪৫৬.৭  এবং ৩৯১ জন।
আমাদের দেশে করোনা  পরিস্থিতির মোকাবিলা করার জন্য স্বাস্থ্য পরিকাঠামো বাড়ানো হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে আইসিইউ, ভেন্টিলেটর এবং অক্সিজেন দেবার ব্যবস্থা। ৭ই জুলাই-এর হিসেব অনুযায়ী যাঁদের সংক্রমণ বেশী এবং যাঁদের খুব হাল্কা সংক্রমণ হয়েছে সকলের জন্য ১২০১টি কোভিড নির্ধারিত হাসপাতাল, ২৬১১টি কোভিড স্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং ৯৯০৯টি কোভিড চিকিৎসা কেন্দ্র গড়ে তোলা হয়েছে। এই উদ্যোগের ফলে সুস্থ হয়ে ওঠার হার ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং মৃত্যুর হারও কমছে।
কোভিড-১৯ এ সংক্রমিতদের দ্রুত শনাক্তকরণ এবং সঠিক সময়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করায় প্রতিদিন সুস্থ হয়ে ওঠার সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত চব্বিশ ঘন্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৫,৫১৫  জন । আজ পর্যন্ত হিসেবে মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪,৩৯,৯৪৭জন।
কেন্দ্র, রাজ্য ও কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলগুলির সঙ্গে সমন্বিত ভাবে কোভিড-১৯ এর মোকাবিলা করার উদ্যোগ নেওয়ায়  দেশে সুস্থ হয়ে ওঠার সংখ্যা এবং চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যার ব্যবধান বাড়ছে। আজকের হিসেবে চিকিৎসাধীন সংক্রমিতদের থেকে ১,৮০,৩৯০ জন বেশি সুস্থ হয়ে উঠেছেন। সারা দেশে সুস্থ হয়ে ওঠার হার ৬১.১৩%। বর্তমানে ২,৫৯,৫৫৭ জন সংক্রমিত চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে রয়েছেন। 
‘টেস্ট-ট্রেস-ট্রিট’ কৌশল অবলম্বন করে বিভিন্ন বাধা দূর করে  প্রতিদিন নমুনা পরীক্ষার পরিমাণ বাড়ানো হচ্ছে।  এছাড়াও কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারগুলি এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের প্রশাসন সংক্রমন আটকাতে নিরন্তর নানা ব্যবস্থা নিয়ে চলেছে। গত ২৪ ঘন্টায় ২,৪১,৪৩০টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এ পর্যন্ত দেশে মোট ১,০২,১১,০৯২টি নমুনার পরীক্ষা হয়েছে।
নমুনা পরীক্ষা করার জন্য দেশে পরীক্ষাগারের সংখ্যা বৃদ্ধি করার উদ্যোগ অব্যাহত। দেশের নানা প্রান্তে  সরকারী পরীক্ষাগার ৭৯৩টি ও বেসরকারি পরীক্ষাগার ৩২২টি ౼অর্থাৎ মোট ১১১৫টি পরীক্ষাগারে এই মুহূর্তে নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। এর মধ্যে ৩৭২টি সরকারী ও ২২৬টি বেসরকারী পরীক্ষাগারে (মোট ৫৯৮ টি) রিয়েল টাইম পিসিআরের মাধ্যমে, ৩৮৮টি সরকারি ও ৩৫টি বেসরকারী পরীক্ষাগারে (মোট ৪২৩টি)  ট্রুন্যাটের মাধ্যমে  এবং ৩৩টি সরকারি ও ৬১টি বেসরকারী পরীক্ষাগারে (মোট ৯৪টি) সিবিন্যাটের মাধ্যমে নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। 




Loading...

Amazon

https://www.amazon.in/Redmi-8A-Dual-Blue-Storage/dp/B07WPVLKPW/ref=sr_1_1?crid=23HR3ULVWSF0N&dchild=1&keywords=mobile+under+10000&qid=1597050765&sprefix=mobile%2Caps%2C895&sr=8-1

Pages