তৃতীয় লক ডাউনে আরও কিছু ছাড় দিয়েছে কেন্দ্র সরকার - আজ খবর । দেখছি যা লিখছি তাই । ডিজিটাল মিডিয়ায় অন্যতম শক্তিশালী সংবাদ মাধ্যম

Sonar Tori


তৃতীয় লক ডাউনে আরও কিছু ছাড় দিয়েছে কেন্দ্র সরকার

Share This
দেশের খবর

আজ খবর (বাংলা), নতুন দিল্লী, ০৩/০৫/২০২০ : আজ দেশে প্রধানমন্ত্রীর জারি করা দ্বিতীয় লক ডাউনের শেষ দিন। দেশের বর্তমান পরিস্থিতি বিচার করে আগামীকাল থেকে আরও দুই সপ্তাহের জন্যে লক ডাউনের মেয়াদ বৃদ্ধি  করা হয়েছে। অর্থাৎ আগামী ১৭ তারিখ পর্যন্ত তৃতীয় দফার লক ডাউন চলবে। 
আজ কেন্দ্রের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফ থেকে গোটা দেশে লক ডাউনের সময় বিভিন্ন জোনগুলিতে কি কি বিধি নিষেধ বলবৎ থাকবে তার একটি পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই করোনা সংক্রমণের পরিস্থিতি বিচারে করে গোটা দেশকে তিনটি রেঞ্জ ভাগ করা হয়েছে, রেড, অরেঞ্জ এবং গ্রিন জোন।তৃতীয় দফার লক ডাউনে কেন্দ্র আরও কিছু ছাড় দিয়েছে। এবার দেখে নেওয়া যাক কেন্দ্র সরকার এই তিনটি জোনে কি কি বিধি নিষেধ আরোপ করেছে। 

নিষিদ্ধ তালিকা - 
১) দেশের আভ্যন্তরীন  ও আন্তর্জাতিক উড়ান  বন্ধ থাকবে। ( জরুরি পরিষেবা ও বিশেষ অনুমতি ছাড়া).
২)  সব ট্রেন ও মেট্রো পরিষেবা বন্ধ থাকবে (বিশেষ অনুমতি ছাড়া)
৩) সিনেমা হল, শপিং মল, জিম, স্পোর্টস কমপ্লেক্স, সুইমিং পুল, বিনোদন পার্ক, থিয়েটার, বার, অডিটোরিয়াম, এসেম্বলি হল এবং এই ধরনের জায়গাগুলি বন্ধ থাকবে।
৪) সব রকম সামাজিক,  খেলা, বিনোদন, শিক্ষা, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় ও অন্যান্য জমায়েত নিষিদ্ধ থাকবে।
৫) আন্তঃরাজ্য বাস পরিষেবা (বিশেষ ক্ষেত্র ছাড়া) বন্ধ থাকবে।
৬) নিজের গাড়ি নিয়ে আন্তঃরাজ্য যাতায়াত বন্ধ থাকবে (মেডিকেল বা বিশেষ জরুরি কারন ছাড়া)।
৭)  স্কুল, কলেজ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, টেনিং সেন্টার , কোচিং ক্লাস বন্ধ থাকবে।
৮) হাউসিং, স্বাস্থ্য, পুলিশ, প্রশাসনিক আধিকারিক, স্বাস্থ্য কর্মী, পরিযায়ী শ্রমিক  ও পর্যটক এবং যাদের কোয়ারেন্টাইন করা হয়েছে তাঁদের ছাড়া অন্য্ সব রকম আতিথ্য পরিষেবা বন্ধ থাকবে।
৯)  কোনো ধর্মীয় প্রার্থনা পাবলিক প্লেসে করা যাবে না।

সুস্থতা  ও স্বাস্থ্য নিরাপত্তার স্বার্থে কি কি করবেন - 
১) রেড ও অরেঞ্জ  জোন গুলিকে সুস্পষ্টভাবে চিহ্নিত করা।
২) মেডিকেল এমার্জেন্সি এবং অত্যাবশ্যকীয় পণ্য  সরবরাহ অথবা সংগ্রহ ছাড়া বাইরে বের হাওয়া নিষিদ্ধ। 
৩) কন্টেইনমেন্ট জোনে আরোগ্যসেতু এপ্লিকেশন বাধ্যতামূলক।
৪) অত্যাবশ্যকীয় নয় এমন প্রয়োজনে সন্ধ্যে ৭টা  থেকে পরের  দিন সকাল ৭টা পর্যন্ত বের হাওয়া কঠোরভাবে নিষিদ্ধ।
৫) ৬৫ বছরের উর্দ্ধে, অন্যান্য রোগের উপসর্গ আছে, অন্তঃসত্ত্বা মহিলা ও ১০ বছরের নিচে কেউ জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বের হবেন  না।
৬) OPD ও Medical Clinic  চলতে পারে, কিন্তু কন্টেইনমেন্ট জোনে নয়, তবে সামাজিক দূরত্ব ও অন্যান্য সতর্কতা মেনে সেগুলি চলতে পারে অন্যান্য জোনগুলিতে ।

রেড জোনে কি কি খোলা থাকবে (কন্টেইনমেন্ট জোনের বাইরে) -
১) সবরকম ব্যবসাবাণিজ্য ও শিল্প বন্ধ থাকবে। (স্পেশ্যাল ইকোনমিক জোন  ও ইন্ডাস্ট্রিয়াল এস্টেট ছাড়া)
২) অত্যাবশ্যকীয় পণ্য  উৎপাদন, ওষুধপথ্য , চিকিৎসা সংক্রান্ত দ্রব্য ও সেসবের কাঁচামাল এবং তা প্রক্রিয়াকরণ ও বাজারজাতকরন খোলা থাকবে।
৩) যে সব পণ্যের উৎপাদন ক্রমাগত চালিয়ে যেতেই হবে, এছাড়া চট শিল্পে শিফটিং ও  নিজেদের মধ্যে দূরত্ব বজায় রেখে কাজ চলতে পারে।
৪) বেসরকারি অফিস খোলা থাকবে এক তৃতীয়াংশ কর্মী নিয়ে। বাকিরা  বাড়ি থেকে কাজ করবেন।
৫) সরকারি অফিসগুলিতে ডেপুটি সেক্রেটারি থেকে ওপরের অফিসারেরা ১০০% কাজে যোগ দিতে পারবেন, তবে বাকি কর্মীরা এক তৃতীয়াংশ কর্মী কাজে যোগ দিতে পারবেন।
৬) প্রতিরক্ষা, বেসরকারি নিরাপত্তা প্রদানকারী সংস্থা, স্বাস্থ্য, পরিবার কল্যাণ, পুলিশ, হোমগার্ড, দমকল, জরুরি পরিষেবা প্রদানকারীরা নিয়ন্ত্রণের বাইরে থাকবে। 
৭) শহরে সবরকম নির্মাণ কাজ বন্ধ থাকবে। শুধু সেতুনির্মান ও এনার্জি প্রজেক্টগুলিতে কাজ চলবে।
৮) অত্যাবশ্যকীয় পণ্য  বিক্রয় করে এমন দোকান খোলা থাকবে, শপিং মল ছাড়া।  
৯) চার চাকার গাড়িতে দুজন যাত্রী নেওয়া যাবে (ড্রাইভারের পাশে বসা যাবে না), দুই চাকার মোটর সাইকেলে পিছনে কাউকে নেওয়া যাবে না। 
১০) শহরে অত্যাবশ্যকীয় দ্রব্যাদি বিক্রি করে না, এমন সব দোকান বন্ধ থাকবে। বাজার ও শপিং কমপ্লেক্সেও এই ধরনের দোকান বন্ধ থাকবে। তবে এলাকার একাকী দোকান, আবাসনের ভিতরের দোকান বা পাড়ার ভিতরের সব রকম দোকান খোলা থাকবে।
১১) গ্রামাঞ্চলে সব রকম দোকান খোলা থাকবে (মিল ছাড়া), ই কমার্স  খোলা থাকবে অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের জন্যে।

গ্রিন জোন -
স্বাস্থ্য বিধি মেনে এবং সীমিত সংখ্যক কর্মী নিয়ে সবকিছুই খোলা থাকতে পারে, বাস চলবে ৫০% যাত্রী নিয়ে, বাস ডিপোতেও ৫০% কর্মী কাজ করতে পারবে।

অরেঞ্জ জোন -
অরেঞ্জ জোনে সবকিছুই খোলা থাকতে পারে, নিম্নলিখিতগুলি ছাড়া -
১) আন্ত:রাজ্য  বা আন্তঃ জেলায় বাস পরিবহন বন্ধ থাকবে।
২) ট্যাক্সি চলবে ২ জন যাত্রী নিয়ে (ড্রাইভারের পাশে নয়).
৩) ব্যক্তিগত গাড়িতে থাকবেন একজন ড্রাইভার ও দুইজন যাত্রী।

পাবলিক প্লেসের জন্যে বিজ্ঞাপ্তি - 
১) বিয়ের অনুষ্ঠানে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে, ৫০ জনের বেশি অতিথি থাকলে চলবে না।
২) মুখে মাস্ক পড়তেই হবে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।
৩) পাবলিক প্লেসে ৫ জনের বেশি জমায়েত নয়।
৪) পাবলিক প্লেসে থুতু ফেলা নিষিদ্ধ।

কর্মস্থানে বিধিনিষেধ -
১) সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।
২) মুখে মাস্ক পড়তেই হবে।
৩) থার্মাল স্ক্যানিং করতে হবে।
৪) হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে।
৫) হ্যান্ড ওয়াশ রাখতে হবে পর্যাপ্ত পরিমাণে।
৬) কাজের শিফটিংয়ের সময় পর্যাপ্ত দূরত্ব বজায় রাখতে হবে এবং পর্যাপ্ত সময়ের জন্যে লাঞ্চ ব্রেক দিতে হবে।
৭) কর্মস্থলে নিয়মিত স্যানিটাইজ করে যেতে হবে।
৮) বেশি সংখ্যক লোক নিয়ে বৈঠক এড়িয়ে যান।
৯) কর্মস্থলের কাছাকাছি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রের তালিকা ঝুলিয়ে রাখতে হবে, যেখানে করোনা  রোগের চিকিৎসা করানো যাবে।
১০) কর্মস্থলে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে হবে।
১১) আরোগ্য সেতু এপ্লিকেশন বাধ্যতামূলক করতে হবে এবং কর্মস্থলের প্রধানকে সেটা নিশ্চিত করতে হবে।
Loading...

Amazon

https://www.amazon.in/Redmi-8A-Dual-Blue-Storage/dp/B07WPVLKPW/ref=sr_1_1?crid=23HR3ULVWSF0N&dchild=1&keywords=mobile+under+10000&qid=1597050765&sprefix=mobile%2Caps%2C895&sr=8-1

Pages