সিআরপিএফ-এর কোবরা কমান্ডোকে লক ডাউন ভাঙ্গায় গ্রেপ্তার করে হেনস্থা পুলিশের - আজ খবর । দেখছি যা লিখছি তাই । ডিজিটাল মিডিয়ায় অন্যতম শক্তিশালী সংবাদ মাধ্যম

Sonar Tori


সিআরপিএফ-এর কোবরা কমান্ডোকে লক ডাউন ভাঙ্গায় গ্রেপ্তার করে হেনস্থা পুলিশের

Share This
 দেশের খবর

আজ খবর (বাংলা), বেলগাম,  কর্ণাটক, ২৭/০৪/২০২০ :  সিআরপিএফ-এর  কমান্ডোকে  গ্রেপ্তার করে খালি পায়ে হাতে শিকল দিয়ে থানায় নিয়ে আসার অভিযোগ উঠল কর্ণাটক পুলিশের বিরুদ্ধে।
সিআরপিএফ-এর এক জওয়ান ছুটিতে বাড়িতে ছিলেন এবং নিজের বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে নিজের মোটর সাইকেল পরিস্কার করছিলেন। সেই সময় কিছু পুলিশ এসে তাঁকে ধরে।  লক ডাউনের শর্ত ভেঙ্গে বাড়ির চৌহদ্দির বাইরে আসায় পুলিশ তাঁকে তুলে নিয়ে আসে থানায়। গোটা ঘটনাটি কেউ ভিডিও রেকর্ডিং করে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছেড়ে দেয়, নিমেষে সেই ভিডিও ভাইরাল হয়ে যায়। সমালোচনার ঝড় বইতে  থাকে নেটিজেনদের মধ্যে।
এই ঘটনার পরেই সিআরপিএফ-এর অতিরিক্ত ডিরেক্টর জেনারেল সঞ্জয় অরোরা এই ব্যাপারে কড়া ভাষায় চিঠি লিখেছেন কর্ণাটক পুলিশের ডিজিপি প্রবীণ সুদকে। তিনি চিঠিতে লিখেছেন, "গত ২৩ তারিখে আপনারা সিআরপিএফ-এর একজন কোবরা কামান্ডোকে তাঁর বাড়ির সামনে থেকে গ্রেপ্তার করেছেন। যে ঘটনার পূর্ণ ভিডিও আমার কাছে এসেছে। গত ২৩ তারিখে, ক্যাপ্টেন সচিন সাওয়ান্ত নামে ওই কোবরা কমান্ডোকে গ্রেপ্তার করেছে বেলাগাভি জেলার সদালাগা থানার পুলিশ। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, ওই জওয়ান তাঁর নিজের বাড়ির সামনে তাঁর মোটর সাইকেল পরিস্কার করছিলেন, সেই সময় আপনার পুলিশ তাঁকে ধরে, ভিডিওতে পরিস্কার দেখা যাচ্ছে, আপনার পুলিশই কথা বলতে বলতে প্রথমে তাঁকে ঠেলাঠেলি করে এবং লাঠি দিয়ে ধাক্কা মারে। অথচ সেই জওয়ানকে তাঁর বাড়ি থেকে আপনার পুলিশ গ্রেপ্তার করে নিয়ে গেল খালি পায়ে, ছবিতে পরিস্কার দেখা যাচ্ছে, তাঁর হাতে শিকল লাগানো রয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে লক ডাউনের শর্ত ভাঙা এবং পাবলিক সার্ভেন্টকে বলপ্রয়োগের ধারা দেওয়া হয়েছে।"
সিআরপিএফ-এর এডিজি বলেন, "বিট পুলিশ ও সিআরপিএফ-এর মধ্যে এই নিয়ে একটা ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছে। লক ডাউনের সময় মাস্ক পড়া নিয়ে গন্ডগোলের সূত্রপাত হলেও ওই জওয়ানের সাথে তাঁর পরিবারের সামনেই অপমান করা হয়েছে, এমনকি তাঁকে নগ্ন পায়ে, হাতে হাতকড়া পাড়িয়ে এবং শিকল দিয়ে বেঁধে থানায় নিয়ে গিয়ে হেনস্থা করা হয়েছে। এটা মেনে নেওয়া যায় না."
সিআরপিএফ সূত্রে জানা গিয়েছে, আগামীকাল এই জওয়ানের জন্যে আদালতে জামিনের আবেদন করা হবে। পুলিশ সাংবাদিকদের জানিয়েছে, "ওই জওয়ান বন্ধুদের সাথে ঘুরে বেড়াচ্ছিল। তাঁর মুখে মাস্ক ছিল না। যখন তাঁকে পুলিশের এক কনস্টেবল জিজ্ঞাসা করেন, তখন ওই জওয়ান তাঁকে বলেন, আপনি কে ? আমি সিআরপিএফ, এবং ওই জওয়ান এক কনস্টেবলের পেটে লাথি  মারেন এবং অপর এক বয়স্ক কনস্টেবলের উর্দির কলার ধরে গালাগালি করেন। সেই কারণে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।"
যদিও এই ব্যাপারটি উড়িয়ে দিয়েছেন সিআরপিএফ এডিজি। তিনি বলেছেন, "সিআরপিএফ যথেষ্ট অনুশাসন মেনে চলে, এই ব্যাপারে সিআরপিএফ-এর যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। কমান্ডোরা আরও ঠান্ডা মাথার মানুষ হন, একজন কোবরা কমান্ডো এই ধরনের ঘটনা ঘটাতে পারেন বলে মনে করি না। তাহলে ভিডিওতে সেই ছবি ধরা পড়ল না কেন ?" ওই জওয়ানের বিরুদ্ধে মহামারী সংক্রান্ত ধারায়ও মামলা করা হয়েছে।  
Loading...

Amazon

https://www.amazon.in/Redmi-8A-Dual-Blue-Storage/dp/B07WPVLKPW/ref=sr_1_1?crid=23HR3ULVWSF0N&dchild=1&keywords=mobile+under+10000&qid=1597050765&sprefix=mobile%2Caps%2C895&sr=8-1

Pages